Category Archives: Tutorial

How to Start a Blog on WordPress

So now you have already understood the basics of what a blog is and you are ready to start your blog . If you haven’t you may want to go back a bit, and read this post. What Is A Blog And Can I Make Money With It?  

In this post, I would recommend that you start your Blog with WordPress. It is what I use and It is the best I have seen so far. But there are many other platforms you can use like Joomla or Blogger. But WordPress is definitely the most popular as I am writing this. Up to 40% of all the websites on the internet use WordPress.

It is a very powerful and flexible platform for any type of website that you want to build, including a social network. Although it is very intuitive, you can easily find someone to tweak anything for you when you want to make changes. But you wouldn’t even need someone, you can do it by yourself. I customized this website you are on, today, all by myself.  So let’s get started on how to start your blog.

Step One

Register Your Domain Name Before Someone Else Does And Host Your Website.

This is the very first thing you should do when you want to start your blog. I am going to tell you why in just a second. First I will tell what domain name is in a simple way for those who are hearing about it for the first time.

In a simple way, a domain name is just the name of your blog. When you want to visit a website, you usually type in something like “thewebsitename.com”. That is the domain name. Note: It is not compulsory that your domain name will be a .com domain name, but it is very popular and much more better in my own opinion to use a .com domain name. It is the most sought after and original domain name extension.

Also try to look for a domain name that will match exactly what your blog is about.

Your domain name should relate to what your blog is talking about, be easy to remember, meaningful, and short and you should love it.

Most importantly, it should be easy to remember and YOU SHOULD LOVE IT.

This is why I said above, that registering and securing your domain name is the very first thing you should do. You see, every day many people are busy registering and securing meaningful short domain names for themselves. There is a chance that the next minute you delay in purchasing a suitable domain name for your website, it will be taken by someone else.

In fact, I advise that once you have come up with a decision on what niche (topic) your blog will be about,  then you should search for and register a very suitable domain name for it immediately, even if you are not prepared to host it yet. See How To Register Your Domain Name And Host Your Website Here

Step Two

Set Up WordPress

If you are hosting your website with Namecheep or other hosting, then WordPress will be installed in the process. If you are not using Namecheap then after hosting your website, normally your hosting company will email you with a link to your cPanel. Log in to the cPanel, and it should look like this

Click on “Softaculous Apps Installer” as you see in the screenshot above. If you don’t find it,  just scroll down more. You will find the section with dark header and titled “Softaculous Apps Installer”. Refer to the screenshot below for clarity. 

Click on the WordPress icon. It is the first icon on the left side with a Big W.

You will arrive at the page below.

Simply click on install now. It will bring you to this page. 

In the “Software Setup” section.

If you purchased SSL Certificate or you got it for free or you already have it in your domain name, then put “https” in the Choose Protocol section. 

Then type your domain name in the Choose Domain section (for example: mywebsite.com is a domain name.) Type yours in there. The one you registered and you want to host.

Move on to the “Site Settings” section.

In the “Site Name” field, type in you website name. Simply type in your domain name without the .com extension in it.

Then in the “Site Description” field, type in a short phrase of what your website is about. For example in when you look above at the header of my website here, you will see “THE $$$ BUNDLES SCHOOL” written in bold. That is my site description. Type yours in. 

Don’t worry, you can always change these things later from inside the wordpress dashboard.

Then move on to “Admin Account” Section.

Simply type in a username you will like to use in logging in to your WordPress Dashboard, back end (WordPress Dashboard is the place where you will control your website from).

Then type in a password. This is very important. Please use a strong password that would be very hard to guess, and always change your passwords too. Keep typing different combinations of letters numbers and symbols until your password strength says “Strong”.

The next few sections would just ask you to choose a language. You can leave English as default. Then on the select plugins section, just leave it the way it is.

Skip the advanced section, and on themes section, just select the first one. You can change all these things later so do not worry about them.

Then finally click on install button and boom 🙂 There you go.

You have successfully installed WordPress, and your blog is ready 🙂

That is how to start your blog.

You can type the domain name of your blog and see how it looks. Just go to your browser and type in www.yourwebsitename.com and you should see your website live, and looking like every other blog online.

Now that you have set up your blog. Do not make the mistake I made because I didn’t know. See the First things you should do immediately after setting up your blog on WordPress.

Read How To Earn Money From Your Blog In 10 Ways

I hope this was helpful. Please leave a comment if you have any questions. Also share this on social media or where relevant. Thank you.

What Is A Blog And Can You Make Money With A Blog?

A blog is a website where you put information and share your knowledge on something know and are interested in, with an audience that wants to know about it or are interested in it.

When you blog, interested people find your blog content either through search engines or social media. They get to know about you, and your interest, which is similar to theirs, and you both can establish a relationship.

Can You Make Money With Your Blog?

Yes. You can make money with your blog if you want to. There are multiple ways to monetize and make money from it. Many people have made money from their blog in the past. Many people are making money from their blog even as you are reading this. More people will make money from it in the future and you could be one of them.

How Long It Will Take To Start Earning Money With Your Blog

Today, tomorrow, next week, next month. There is no specific time, if you monetize your blog with all the possible methods. You can start earning money the same day you made your first blog post. This is rarely the case, but I know that it is possible. You start earning money the moment you meet the right audience.

If you put out a good content and share it on social media, if you are lucky to meet the right person, you could make money that same day. But you are more likely to meet the right audience when your blog gets more popular.

How Much Money Can You Make With Your Blog?

There is no limit to how much money you can make. It depends on why you are blogging and how you treat your blog. If you take your blog as a business and treat it like one, you will make much more money from it and there is no limit. But if you take your blog as a hobby, then you will make smaller amount of money from it.

Pat Flyn of SmartPassiveIncome once made above $300,000 in just one month from his blog, and on average he makes about $100,000 a month from his blog. There are many other bloggers making a steady 5 Figure income every month from their blog.

But my goal in this website is to help start your blog and make $100 every day from it. When you get to that threshold, I am sure you can scale it up to any level you want.

Read: How To Start Your Blog

WINDOWS 10 SETUP দেবার নিয়ম

খুব সহজেই জেনেনিই WINDOWS 10 সেটাপ দেবার নিয়ম এবং হয়েযান নিজেই দক্ষ…..

Windows 10 বর্তমান সময়ে সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি Operating System.  দারুন সব ফিচার এবং অত্যন্ত নিরাপত্তা সম্বলিত বৈশিষ্ট্য নিয়ে বাজারে হাজির হওয়া মাত্রই ব্যবহারকারীদের নজর কাড়তে সক্ষম হয় এই Operating System টি। এর কয়েকটি ভার্সন বের হয়েছে। আজকে আমরা এই Operating System সেটাপ নিয়ে আলোচনা করবো। এই কাজটি খুবই সহজ এবং খুব বেশি কম্পিউটার জ্ঞান থাকার প্রয়োজন নেই। নতুনদের জন্য আমরা আজকে চিত্রসহ সুন্দরভাবে আলোচনা করার চেষ্টা করবো।

Windows 10 Setup দেয়ার আগে জেনে নিতে হবে আপনার কম্পিউটারে এটা চলবে কিনা?

Windows 10 Setup করার জন্য আপনার Computer/Laptop এ কমপক্ষে যা থাকা প্রয়োজনঃ

১. 1.8 GHz Processor
২. 2GB RAM
৩. 20GB in C Drive

Windows Setup এর আগে C Drive/Desktop/Documents এর সকল গুরুত্বাপূর্ণ File অন্য Drive সরিয়ে রাখুন। কারন Windows Setup এর কারনে ঐ সব জায়গার সব File চিরতরে হারিয়ে যাবে।

Windows 10 শিখতে গেলে প্রথমে BIOS (Basic Input Output System) সেটিংস জানতে হবে। আর এ বিষয়টি হাতে কলমে শিখার কোন বিকল্প নেই। প্রয়োজনে অভিজ্ঞ কারো কাছে গিয়ে এ বিষয়টি জেনে নিতে হবে।

Step-1: BIOS (BASIC INPUT OUTPUT SYSTEM) Setup

Computer এর Power সুইচ টিপ দেওয়ার পর Display আসার সাথে সাথে F2/Del Key চেপে BIOS এ প্রবেশ করতে হবে।

এখন Boot Option এ গিয়ে 1st Boot : CD/DVD আর 2nd Boot : HD/Hard Disk করে দিতে হবে।

F10 চেপে ও Y(Yes) চাপলে BIOS Save হবে এবং Computer Restart হবে।

। পিসি রিস্টার্ট দেওয়ার পর মনিটরে চোখ রাখুন। নিচের চিত্রের মত Press any Key To boot From CD or DVD… মেসেজ আসার সাথে সাথে কী-বোর্ড থেকে এন্টার বা যে কোন কী চাপুন (USB থেকে সেটাপ দিলে মেসেজটি আসবে না)। কোন কারণে কী চাপতে দেরী হলে আবার রিস্টার্ট দিতে হবে।

অপেক্ষা করুন। নিচের মত ফাইল লোডিং হবে।

২। কিছুক্ষণ অপেক্ষার পর নিচের চিত্র আসবে। ওখানে ভাষা, কী-বোর্ড মোড আর টাইম ফরমেট পছন্দ করতে হবে। আমাদের জন্য ডিফল্ট সেটিংসটি ঠিক আছে। তাই কোন কিছু না করে আমরা Next/Enter দেবো।

৩। পরবর্তী স্ক্রীনে কয়েকটি অপশন আছে। Repair এবং Install. আমরা যেহেতু Windows 10 Install করতে যাচ্ছি তাই  Install/Enter দেবো।

। License Agreement আসবে। এখানে I accept the License terms এ চেক মার্ক দিতে হবে। এ জন্য কী-বোর্ড থেকে Space bar চাপুন বা মাউস দিয়ে ক্লিক করে টিক মার্ক দিন। তারপর Enter দিন।

৫। পরবর্তীতে স্ক্রীনে নিচের মত আসবে। এখানে দুইটি অপশন আছে। Upgrade আর Custom. আমরা যেহেতু নতুন করে Windows Install করতে যাচ্ছি সেহেতু CUSTOM এ ক্লিক করবো।

৬। পরবর্তীতে HDD Partition আসবে। এখানে আপনাকে একটি পার্টিশান সিলেক্ট করতে হবে যে পার্টিশানে Windows 10 Install করবেন। পুরাতন Partition হলে তা Format করে নিন। তাছাড়া এখানে আপনি হার্ডডিস্কে পার্টিশান/ড্রাইভ তৈরি, ডিলিট, ফরমেট ইত্যাদি কাজ করতে পারবেন। একটি পার্টিশান সিলেক্ট করে Next দিয়ে Install এর জন্য অগ্রসর হোন।

৭। Windows 10 Install শুরু হবে। অপেক্ষা করতে হবে। এ পর্যায়ে পিসি কয়েকবার রিস্টার্ট নেবে। প্রায় ২৫-৩৫ মিনিট সময় লাগতে পারে।

৮। নিচের স্ক্রীনটি আসবে। এখানে আপনাকে একটি User Name আর Computer Name দিতে হবে (না দিলেও কোন সমস্যা নেই)। আপনি ইচ্ছে করলে এই User Name আর Computer Name পরবর্তীতে পরিবর্তন করতে পারেন। এরপর Next/Enter দিন।

 

৯। এখানে ইচ্ছা করলে আগের স্টেপে দেয়া User Name এর জন্য Password দিতে পারেন। এই পাসওয়ার্ডও পরবর্তীতে দেয়া যায়। আমরা এখানে কোন পাসওয়ার্ড দেব না। Next/Enter দিন।

কিছুক্ষণ পর আপনার সামনে হাজির হবে Windows 10 এর প্রতিক্ষিত ডেস্কটপ।

ভার্সনের উপর ভিত্তি করে স্ক্রীন বা বর্ণনার একটু পার্থক্য থাকতে পারে। আমার এই টিউটোরিয়াল নতুনদের জন্য শুধু একটু ধারণা দেয়ার চেষ্টা করেছি।

Crystal Reports and Visual Basic 6.0

Reports can be made quickly and easy for use with VB with Crystal Reports. But there are some problems you can encounter. For example if you use ODBC the name of the used DSN connection is saved within the report. Also when your users want to change the layout of the report they need a direct connection to the database. You can use views or a special user account to protect the structure of your database.

 

An other way is to make use of Data Definition files. They are just ASCII files which contains the fields and their properties that are to be used in the report. Using such a file means that there is no direct connection with the database. In Visual Basic the query is executed and the result – together with the Data Definition file – will produce the report.

To make it work you have to take three steps:

 

  • making the Data Definition file
  • making the report
  • merge them in VB and show the result

 

The Biblio.mdb will be used in this example.

 

Step 1: making the Data Definition file

 

The report needs to be a view to be of all present authors with their titles and year of publication. The fields Author.Author, Titles.Tiltle and Titles.Year Published must be shown on the report. Due the keys the table Title Authors is used. The SQL to get the result is:

 

SELECT Authors.Author, Titles.Title, Titles.[Year Published]

FROM Titles INNER JOIN (Authors INNER JOIN [Title Author] ON Authors.Au_ID = [Title Author].Au_ID) ON Titles.ISBN = [Title Author].ISBN;

 

Making the Data Definition file can be done in Crystal Reports but also in any ordinary editor like notepad. The format is fixed:

 

Fieldname

Fieldtype

Fieldsize

Description

 

All on one line separated by a TAB.

 

Author   String   255 name

Title    String   255 Title

YearPublished    String   4   year

 

Don’t forget to save the file with the name: AuthorTitles.ttx Crystal Reports needs that to be able to define a report on this file.

 

Step 2: making the report

 

Start Crystal Report; choose for New, Standard report. On the tab Data select Active Data. On the next screen the choice is Data definition. Select with Browse the file you have made in step 1. Click on Finish. On the tab Fields select Add all and then  Preview Report.

The report will be shown. As values the given descriptions will be shown. With Design you can change what you want on the report. Just save the report (standard extension .rpt). For quick merging in VB use the same name for the report as for the Data Definition file: AuthorTitles.rpt

 

Step 3: merge them in VB and show the result

 

Open a new project in VB (name = prjDDCR). Place on the default form (name = frmDDCR) a commandbutton (name = cmdShowReport; caption = Show report). Don’t forget to add the reference for DAO (Microsoft DAO Object Library ) and for Crystal Reports (Crystal Reports Engine Object Library).

 

Add the next code to the general section of the form. (It’s just an example so all values are hard-coded.)

 

Option Explicit

 

Private db              As DAO.Database

Private CDOSet          As Object

Private RepApp          As Object

Private CrystRep        As CRPEAuto.Report

Private RepDb           As CRPEAuto.Database

Private RepTables       As CRPEAuto.DatabaseTables

Private RepTable        As CRPEAuto.DatabaseTable

Private LabelRows()     As Variant

 

On the Form_Load event add the next code. Don’t forget the code in the Form_Unload event! Change the path to the right location of your local Biblio.mdb

 

Private Sub Form_Load()

Set db = OpenDatabase(App.Path & “\biblio.mdb”)

End Sub

 

Private Sub Form_Unload(Cancel As Integer)

db.Close

End

End Sub

 

Under the cmdShowReport_Click event is the code which merge the result of the executed SQL with the Data Definition file and the actual report.

 

Private Sub cmdShowReport_Click()

Dim strSQL          As String

Dim rs              As DAO.Recordset

Dim intFN           As Integer

Dim strFN           As String

Dim strLine         As String

Dim intX            As Integer

Dim intC            As Integer

Dim intLabelCount   As Integer

Set RepApp = CreateObject(“Crystal.CRPE.Application”)

Set CrystRep = RepApp.OpenReport(App.Path & “\AuthorTitles.rpt”)

Set CDOSet = CreateObject(“CrystalDataObject.CrystalComObject”)

intLabelCount = 0

intFN = FreeFile

strFN = App.Path & “\AuthorTitles.ttx”

Open strFN For Input As intFN

Do While Not EOF(intFN)

Line Input #intFN, strLine

If Len(strLine) <> 0 And Right(strLine, 2) <> “%%” Then

CDOSet.AddField Split(strLine, vbTab)(0), vbString

intLabelCount = intLabelCount + 1

End If

Loop

strSQL = “SELECT Authors.Author, Titles.Title, Titles.[Year Published]” + _

” FROM Titles INNER JOIN (Authors INNER JOIN [Title Author] ON ” + _

” Authors.Au_ID = [Title Author].Au_ID) ON Titles.ISBN = [Title Author].ISBN;”

Set rs = db.OpenRecordset(strSQL)

With rs

If Not (.EOF And .BOF) Then

.MoveLast

ReDim LabelRows(.RecordCount – 1, intLabelCount – 1)

.MoveFirst

For intX = LBound(LabelRows) To UBound(LabelRows)

For intC = 0 To .Fields.Count – 1

LabelRows(intX, intC) = CStr(“” & .Fields(intC).Value)

Next ‘intC

.MoveNext

Next ‘intX

CDOSet.AddRows LabelRows

Set RepDb = CrystRep.Database

Set RepTables = RepDb.Tables

Set RepTable = RepTables(1)

Call RepTable.SetPrivateData(3, CDOSet)

CrystRep.Preview “AuthorTitles.rpt”

Else

End If

End With

Set rs = Nothing

Set RepApp = Nothing

Set CrystRep = Nothing

Set CDOSet = Nothing

End Sub

 

Compile the project. Just hit the command button. Crystal Reports will open a separate window to show the result of the executed query in the report. You can open as much reports as you wish.

The advantage of using a Data Definition file is that no difficult solutions has to be made on the database side. You don’t have to make views available to the users. You don’t have to make a special user with only access to those tables you want. Adding a new report does not mean to be forced to compile a new executable. If you save the SQL and the Data Definition files in the database you only have to update the relevant tables. You can save the reports also in the database but it’s better to have them located outside the database. Showing all available reports form a certain location is just easy to do. Merging the three files together is just a simple extension on the example project.

ওরাকল সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট

আমাদের উপস্থাপনের সুবির্ধাথে ও শিক্ষার্থীদের সহজে বুঝিবার জন্য আমরা আমাদের এই টিউটোরিয়াল কে পাঁচটি বিভাগে ভাগ করেছি।

* ওরাকলের সংক্ষিপ্ত আলোচনা ও ইনস্টলেশন

* SQL নিয়ে আলোচনা

* PL/SQL নিয়ে আলোচনা

* From Developing

* Report Developing

এবং সর্বশেষে যে বিষয়টি অন্তর্ভূক্ত করেছি। সেটি হলো Setup file বা EXE ফাইল তৈরি ও প্রসেসিং। এই প্রত্যেকটি অধ্যায়ে বা পর্বে অনেক গুলো Lesson আছে।


 

সংক্ষিপ্ত আলোচনা ও ইনস্টলেশন

Lesson সমূহঃ

* ডেটা, ডেটাবেজ ও RDMS নিয়ে আলোচনা।

* ওরাকল, ইতিহাস ও ডেটাবেজ

* ডেটাবেজ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন ও ইউটিলিটিস

* ওরাকল ডেটাবেজ আর্কিটেকচার

* ওরাকল ডেটাবেজ ও গ্রীড/ক্লাউড কম্পিউটিং

* ওরাকল ডেটাবেজ, ডেভলপার ইনস্টলেশন

* ওরাকল ডেটাবেজ ইন্সট্যান্স ম্যানেজমেন্ট


 

ওরাকল শিক্ষনীয় পর্ব ১

* ডেটা কি?

* ডেটাবেজ কি?

* ডেটাবেজের বিভিন্ন উপাদান

* ডেটাবেচ ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম

* ডেটাবেজ মডেল

* ডেটাবেজ ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের

* সুবিধা

* প্রয়োগের চ্যালেঞ্জ

* রিলেশনাল ডেটাবেজ ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (RDMS)

 


ডেটাঃ

Data শব্দটি ল্যাটিন শব্দ Datum এর বহুবচন । Datum এর অর্থ তথ্যের উপাদান । তথ্যের অন্তর্ভুক্ত ক্ষুদ্রতম অংশসমূহ হচ্ছে ডেটা বা উপাত্ত । প্রক্রিয়াকরণ করে তথ্যে পরিণত করার জন্য কম্পিউটারে ডেটা বা উপাত্ত সমূহকে ইনপুট বা সরবরাহ করা হয় ।

 

তথ্য?

সরবরাহকৃত ডেটা থেকে প্রক্রিয়াকরণের পর নির্দিষ্ট চাহিদার প্রেক্ষিতে সুশৃংখল যে ফলাফল পাওয়া যায় তাকেই বলা হয় তথ্য বা ইনফরমেশন ।

ডেটাবেজ?

Data শব্দের অর্থ হচ্ছে তথ্য বা উপাত্ত এবং Base শব্দের অর্থ হচ্ছে ঘাটি বা সমাবেশ । শাব্দিক অর্থে ডেটাবেজ হচ্ছে প্রাসঙ্গিক বিষয়ের উপর ব্যাপক তথ্য বা উপাত্তের সমাবেশ । বিভিন্ন লেখক বিভিন্নভাবে ডেটাবেজের সংজ্ঞাদিয়েছেন-

“সম্পর্কযুক্ত ডেটার সমাবেশই ডেটাবেজ(A database is a collection of related data.)- Elmadsi & Navathe.”

“এক বা একাধিক সম্পর্কযুক্ত প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রমকে বর্ণনা করার জন্য ডেটার সংগ্রহকেই ডেটাবেজ বলে। – Ramakrishnan & Gehrike.”

আর আমার মতে,

ডেটাবেজ হলো সেই বিষয় যেখানে একটি প্রতিষ্ঠানের সকল ডেটা সংরক্ষিত থাকে যা প্রয়োজনে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ভাবে ব্যবহার করা যায়।

 

ডেটাবেজের উপাদানঃ

বিট(Bit): একটি ডেটার ক্ষুদ্রতম যে অংশ একটি কম্পিউটার ব্যবহার করে তাকে বিট বলে। বাইনারী ডিজিটের সংক্ষিপ্ত রূপ বিট। বিট কে 0, 1 দ্বারা প্রকাশ করা হয় আর এই 0, 1 হলো বাইনারী সংখ্যা যার ওপর ভিত্তি করে কম্পিউটার কাজ করে।

 

বাইট(Byte): বাইট হলো 8টি বিটের সমান বা 8বিটে এক বাইট হয়। অর্থাৎ একটি অক্ষর, নাম্বার বা প্রতীক কে বুঝানো হয়।

ফিল্ড(Field): একাধিক অক্ষর সমন্বয়ে গঠিত হয় একটি শব্দ বা একটি সংখ্যা। একে ফিল্ড বলা হয়। যেমন- কোন লোকের নাম বা বয়স ফিল্ড হতে পারে।

রেকর্ড(Record): পরস্পর সম্পর্কিত একগুচ্ছ ফিল্ডকে রেকর্ড বলে। যেমন- নাম, ঠিকানা, বয়স একত্রে একটি রেকর্ড।

ফাইল (File): একই রকমের অনেকগুলো রেকর্ড নিয়ে একত্রে একটি ফাইল গঠিত হয় বা ফাইল বলা হয়। একটি স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের তথ্যাবলিগুলো কে ফাইল বলা হয়।

ডেটাবেজ (Database): অনেকগুলো একই কাজের ফাইল একত্রিত হয়ে একটি ডেটাবেজ তৈরি হয়।

 

ডেটাবেজ ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (DBMS) :

ডেটাবেজ ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (DBMS) হচ্ছে পরস্পর সম্পর্কযুক্ত তথ্য এবং সেই তথ্য পর্যালোচনা করার জন্য প্রয়োজনীয় প্রোগ্রামের সমষ্টি। পরস্পর সম্পর্কযুক্ত এ তথ্যকে বলা হয় ডেটাবেজ। এ ডেটাবেজে কোন প্রতিষ্ঠানের যাবতীয় তথ্য সংরক্ষণ করা হয়। DBMS এর প্রাথমিক লক্ষ হচ্ছে ডেটাবেজে তথ্যাবলি সংরক্ষণ সহজতর করা এবং তা ব্যবহারে সহায়তা প্রদান করা।

DBMS হলো এমন একটি Software যেটা- ডেটাবেজ তৈরি, পরিবর্তন, সংরক্ষণ, নিয়ন্ত্রণ এবং পরিচালনার কাজে ব্যবহার হয়।

“A Database Management System is a Collection of programs that enables users to create and maintain a database.”

 

ডেটাবেজের সংগঠন বা মডেলঃ

ডেটাবেজকে ব্যবহারকারীরা কি ভাবে ব্যবহার করবে তার উপর ভিত্তি করে ডেটাবেজের গঠণ নির্ভর করে। ডেটাবেজের গঠণকে চার ভাগে বিভক্ত করা হয়।

. সরল ডেটাবেজ মডেল,

 . হায়ারারকিক্যাল ডেটাবেজ মডেল,

. নেটওয়ার্ক ডেটাবেজ মডেল,

. রিলেশনাল ডেটাবেজ মডেল.

ডেটাবেজ ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের কাজ :

  1. প্রয়োজন অনুযায়ী ডেটাবেজ তৈরি করা,
  2. ব্যবহারকারী নিয়ন্ত্রণ করা,
  3. নতুন ডেটা/ রেকর্ড বাদ দেওয়া,
  4. অপ্রয়োজনীয় ডেটা/ রেকর্ড বাদ দেওয়া
  5. ডেটার বানান ও সংখ্যার ভুল অনুসন্ধান ও সংশোধন করা,
  6. প্রয়োজনীয় ডেটা/ রেকর্ড অনুসন্ধান ও সংশোধন করা,
  7. প্রয়োজন অনুযায়ী পুরো ডেটাবেজকে যেকোন ফিল্ডের ভিত্তিতে বিভিন্নভাবে বিন্যস্ত করা,
  8. চূড়ান্ত সম্পাদনার কাজ সম্পন্ন করা,
  9. প্রয়োজনীয় ডেটাবেজের প্রিন্ট নেওয়া,
  10. ডেটার নিরাপত্তা বিধান করা
  11. ডেটা সংরক্ষণ করা

 

ডেটাবেজ ম্যানেজমেন্টের সুবিধাঃ

* এটি একটি সুসংগঠিত ডেটা ব্যবস্থাপনা প্রক্রিয়া

* এর সাহায্যে অতি দ্রুত এবং সহজেই ডেটা একসেস, মডিফাই এবং কোয়ারি করা যায়

* ডেটার যথাযথ নিরাপত্তা নিশ্চিত করে, ফলে আন-অথারাইজড ব্যক্তি ডেটা এক্সেস করতে পারে না

* ডেটার অসামঞ্জস্যতা তৈরি হয় না, কেননা একই সাথে একাধিক ব্যবহারকারী ডেটা একসেস করে থাকে

* ডেটা রিডাডেন্সি কম এবং ডেটা ইনকনসিস্টেন্সি সমস্যা নেই

* ডেটা আইসোলেশন সমস্যা নেই বর্র ডেটা ইন্ট্রিগিটি বিদ্যমান

* ডেটাবেজ ইউজার ফ্রেন্ডলি এবং এর মেইনটেনেন্স খরচ কম

* সহজ উপায়ে এবং দ্রুত ডেটা ব্যাকআপ নেওয়া যায়, রিকোভারি করা যায় এবং ট্রান্সফার করা যায়

* কোয়ারি ল্যাঙ্গুয়েজ ব্যবহার করা যায়

 

ডেটাবেজ ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম প্রয়োগের চ্যালেঞ্জ সমূহঃ

 

ডেটাবেজ ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম প্রযোগে বেশ কিছু বাধা আছে।

* ডেটাবেজ ডিজাইন করা বেশ কঠিণ ও সময় সাপেক্ষ একটি কাজ

* এর জন্য হার্ডওয়ার ও সফটওয়ারের খরচ বেশি হয়।

* ডেটাবেজ সিস্টেম ব্যবহার করতে দক্ষ ব্যবহারকারী জনশক্তি প্রয়োজন এবং সকল ব্যবহারীকারীকে প্রাথমিকভাবে প্রশিক্ষণ নিতে হয়।

* ডেটাবেজকে নিয়মিতভাবে মেইনটেনেন্স ও টিউনিং করার প্রয়োজন হয় এবং নিয়মিত এর ব্যাকআপও নিতে হয়।

 

রিলেশনাল ডেটাবেজ ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (RDMS):

১৯৭০ সালে E.F. Codd প্রথম প্রাথমিক কী ব্যবহার করে দুটি ডেটাবেজের মাঝে সম্পর্ক তৈরির পদ্ধতি উদ্ভাবন করেন। তার ধারনা অনুযায়ী বৃহৎ ডেটাকে ভেঙে আলাদা আলাদা ডেটাটেবিল তৈরি করে নিতে হবে, পরে কোন কমন ফিল্ডের ভিত্তিতে টেবিলসমূহের মধ্যে সম্পর্ক তৈরি করা যাবে।


এখানে আমরা ওরাকলের সংক্ষিপ্ত আলোচনা ও ইনস্টলেশন শিক্ষনীয় পর্ব ১ নিয়ে আলোচনা করেছি। পরবর্তী  টিউটোরিয়াল পার্বে আমরা ওরাকলের শিক্ষনীয় পর্ব-২ নিয়ে আলোচনা করা এবং এই লেখাগুলো ধারাবাহিক ভাবে চলতে থাকবে। আপনারা যাহারা ওরাকল সম্পর্কে জানতে ও শিখতে ইচ্ছুক, তাদের সকলকে আমাদের লেখাগুলো পড়ার জন্য আমন্ত্রণ জানায়।

Epson Adjustment Program Troubleshoot

1.   Printer doesn’t respond the commands from Adjustment Program
Solution:
After the Adjustment Program window opens, press SELECT, in the PORT section, specify the USB Port printer (don’t use Auto Selection).

2.   Show License ID or Hardware ID when open adjustment program
Solution:
Open the KEYGEN file, enter the License ID, then press New Key or Create License Key, to get the Activation Key.

3.   Show error “Unknown Exception” when opening the Adjustment Program
Solution:
–   Right click Adjprog, run as administrator. If this way fail.
–   Disable Antivirus and Windows Defender for a while, then right click Adjprog, run as administrator. After finish using the Adjustment Program, reactivate Antivirus and Windows Defender.

4.   Communication error. Error Code : 21000069, 2100012C, 20000010, etc

Solution:
After the Adjustment Program window opens, press SELECT, in the PORT section, specify the USB Port printer (don’t use Auto Selection).
5.   This program cannot be used or CRC cheksum error
Solution:
After extract the Epson adjustment program file, then open Adjprog.exe, show error: This program cannot be used or CRC cheksum error.
–   Delete the Epson adjustment program folder
–   Extract adjprog.rar once again-   Open change date and time settings. Change date according to the information contained in the file.
–   Delete folder Adjustment Program on drive C. C:\Adjustment Program
–   Re-open Adjprog.exe
–   After finish using the Adjustment Program, normalize the date and time settings
6.   A DLL file was not found. Click OK button to terminate this program
Solution:
Right click Adjprog, select Properties, select Compatibility, check box “Run this program in compatibility mode for”, click OK. Open Adjprog.exe once again.
If you have trouble doing it, I suggest asking for help from the nearest printer repair professional.

ভিজুয়্যাল স্টুডিও অথবা ভিজুয়্যাল বেসিক/ সি++/ সি# /এফ# চালুকরার নিয়মঃ

ভিজুয়্যাল স্টুডিও কম্পিউটারে ভালোভাবে ইন্সটল করা থাকলে নিম্নোক্ত নিয়মে শুরু করা যাবে।

১। প্রথমে কম্পিউটার চালু করতে হবে এবং এরপরে উইন্ডোজের স্টার্ট বাটনে ক্লিক করলে পপ-আফ মেনু আসবে। উক্ত চিত্রের মত।

২। এই মেনু হতে All Apps ক্লিক করলে মেনু Expand হবে। এবার মাউসের স্ক্রোল করে Microsoft Visual Studio 2010/2012/2015/2017/2019 তে যেতে হবে। এখানে আসার পরে, Visual Studio 2010/2012/2015/2017/2019 তে মাউস দ্বারা ক্লিক করে, কিছু সময় অপেক্ষা করতে হবে। চিত্রের মত।

৩। এই বার যে উইন্ডোটি আসল। এটিকে ভিজুয়্যাল স্টুডিওর Standard Windows বলা হয়। আর এই উইন্ডো থেকেই যেকোন প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজের কাজ করা যাবে। যে ল্যাংগুয়েজ গুলো ভিজুয়্যাল স্টুডিওতে আছে।

 

ভিজুয়্যাল স্টুডিওর উইন্ডো পরিচিতিঃ

উক্ত ভিজুয়্যাল স্টুডিও উইন্ডো কে Integrated Development Environment বলা হয়। আমরা এখানে এই উইন্ডো সম্পর্কে জানব।

টাইটেলবারঃ উইন্ডোটির সবার উপরের নাম সংবলিত বারটিকে টাইটেল বার বলে।

মেনুবারঃ টাইটেল বারের নিচে File, Edit, View …….  ইত্যাদিত সংবলিত বারকে মেনুবার বলে। এই মেনুর অধিনেক অনেক সাবমেনু বা কমান্ড আছে। যেগুলো দিয়ে ভিজুয়্যাল স্টুডিওতে প্রোগ্রামিং এর সময় অনেক কাজে লাগবে। বিভিন্ন কমান্ড করা যাবে।

টুলবারঃ মেনুবারের নিচে বিভিন্ন আইকোন সংবলিত বারকে সাধারণ টুলবার বলে। এই বারে বিশেষ কিছু কমান্ডের আইকোন বাটন রয়েছে। যেগুলোর মাধ্যমে সেই কাজ গুলো অতি-সহজে সম্পাদন করা যায়। এই রকম আরও অনেক টুলবার আছে।

What do you need first, when you want to learn any language?

Dear learner’s & viewer,

Today I want to tell you some about of Learning a language or Bengali (Bangla) Language. If you want to learn any language, what do you need first? First you need to do learn Alphabet of this language, I mean you need first learn Alphabet a language for controlling her all section.

Hence, now if you really want to learn Bangla (Bengali) language, you may be needed Alphabet learning of Bengali. Because, Bengali language has also own Script or Alphabet. Bangal Alphabet have 50’s letters. Bengali Alphabet have 2 kinds like as English Alphabet vowel & consonant.

This type Bengali have 2 kinds of Alphabet letter (1) Shoroborno (Vowel) & (2) Banjonborno (Consonant). Shoroborno have 11 letters & Banjonborno have 39 letters.

However, now we come to main point. Let’s go to learn Bengali Alphabet for conversation or learning of using. This is our first lesson of learning any language. Bengali first lesson called Child Education of Bangla or Adorsholipi or Bengali ABCD. Bengali Have Computer or Mobile based many Bengali learning Software & Apps. Hope it help you guys. But there we try to give information of learning Bangla.

See the below script of Bangla or Bengali Language Alphabet.

অ আ ই ঈ উ ঊ ঋ ৯ এ ঐ ও ঔ ক খ গ ঘ ঙ চ ছ জ ঝ ঞ ট ঠ ড ঢ ণ ত থ দ ধ ন প ফ ব ভ ম য র ল শ ষ স হ ক্ষ ড় ঢ় য় ৎ ং ঃ ঁ

Bengali

Pronunciation

English

Shorio

A, O

Shoria

A

Roshie / Risshi

I

Dirghoi / Dirghi

I

Rosshu

U

Dirghu

OO / U

Ri

Ri

Rosolli

This is no more use.

Ae

A, E

Ohi/ Ai

Ai

Oh

O

Ouh

Au / Oh

Ko / Ka

K, C, Ch, Q

Kho /Kha

Kh

Go /Ga

G

Gho / Gha

Gh

Ongo

Ng, N

Cho

Ch, c

Chho

Chh, Ch, S

Borgiojo J, Z, G
Jho

Jh, Zh

Enho N
To / Ta

T

Tho / Tha Th
Doh

D

Dhoh Dh
Modhanno

N

Toe T

Thoe

Th

Do

D

Dho Dh
Dontanno

N

Po / Pa P
Pho / Pha / Fo

Ph, F

Bo B
Bho / Vo

Bh, V

Mo M
Antozo

Z

Bo-a-shunno-Ro R
Lo

L

Talbosho Sh
Modhhanno-Sho

Sh

Dontan-no-So S
Ho / Ha

H

ক্ষ

Duttoksha Ksh
Doyshindro

R

Dhoyshindro Rh
Ontaya-zo

Ay

Khandikto Te
Onisho

Ng

Bishargha
Chondro-bindu

n

Those are complete Bangla Alphabet. I think this lesson help you understand Bangla. Bangla or Bengali script have no Small or Capital letter. It has only Letter.

আমার সোনার বাংলা (Amar Sonar Bangla) – My Bengal is gold.

You all see the Bengali sentence. Here is some writing deference between Alphabet & writing style. Writing style have some more script style. See the deference only Vowel. When you want to write some like Ma- then it show in Bangla like this (ম + আ)= মা (ম+া). This type of script called in Bangla Kar Letter.

Kar Letter (কার- বর্ণ)

আ- কার

Shoria – Kar

ই- কার

ি

Roshie – Kar

ঈ-কার

Dirghoi – Kar

উ- কার

Rosshu – Kar

ঊ- কার

Dirghu – Kar

ঋ-কার

Ri – Kar

এ- কার

Ae – Kar

ঐ- কার

Ohi – Kar

ও- কার

Oo – Kar

ঔ- কার

Ouh – Kar

 

আ+ম+া+র = আমার  (A+m+a+r = Amar),  ো+ স +ন+া+র = সোনার (S+o+n+a+r = Sonar)

ব+া+ং+ল+া = বাংলা (B+a+ng+l+a = Bangla)

Bangla also another Letter that called Fala. Next time I discuses about of another section of Bangla & Fala letter. Today are no more. I hope you all like this type of information about Bangla Language Learning. I think know your language perfectly then you also write your Language details & share it with world people.